1. admin@notunkurisylhet.com : notun :
সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০৬:১১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বাহুবলে করাঙ্গী নদীর বাঁধ ভেঙে এলাকা প্লাবিত।। পানিবন্দি বাসিন্দারা বাহুবলে বিজয়ী হবার পরই কৃতজ্ঞতা জানাতে লোকালয়ে ঘুরছেন চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান বাহুবলে জমি সংক্রান্ত বিরোধ দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৫ তীর বৃদ্ধ গুরুত্বর অবস্থায় দু’জনকে সিলেট প্রেরণ বাহুবলে ফ্রিপ প্রকল্পের কৃষক গ্রুপের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারের মৃত্যু হবিগঞ্জে ছাড়তে হচ্ছে না ৩ উপজেলা চেয়ারম্যান এর চেয়ার বাহুবলে জামানত হারিয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান খলিলসহ ৯ প্রার্থী বাহুবলে জাল ভোট দেওয়ায় একজনের ১ বছরের কারাদণ্ড, আটক ২ দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচনে কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের প্রতি পুলিশ সুপারের হুশিয়ারী বানিয়াচংয়ে সংঘর্ষে নিহত ৩! আহত শতাধিক

মাধবপুরে প্রবাসীর ঘরের সামনে ল্যাট্রিনের ট্যাংকি

শেখ জাহান রনি মাধবপুর হবিগঞ্জ প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ৩০১ বার পঠিত

শেখ জাহান রনি, মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের মাধবপুরে বসতঘরের সামনে ল্যাট্রিনের ট্যাংকি স্থাপন করে একটি পরিবারের স্বাভাবিক জীবন অতিষ্ট করে তোলার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

এ ঘটনায় উপায়ান্তর না দেখে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে প্রতিকার চেয়ে অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী পারুল আক্তার।

 

 

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে উপজেলার বুল্লা ইউনিয়নের পাটুলী গ্রামের পারুল আক্তারের বসত ঘরের সামনে ল্যাট্রিনের ট্যাংকি স্থাপন করেছেন একই বাড়ির বাসিন্দা সদাগর মিয়ার পুত্র সোহেল মিয়া।

 

 

ল্যাট্রিনের ট্যাংকি দূর্গন্ধে পারুল আক্তার ও তার পরিবারের লোকজন অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন।দূর্গন্ধে পারুল আক্তারের ঘরে থাকা কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে। সোহেল মিয়াকে ট্যাংকি নির্মানের বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে ক্ষিপ্ত হয়ে পারুল আক্তারকে মারধর করতে উদ্যত হয় সোহেল।

 

 

ওয়ার্ড মেম্বার শফিক মিয়া ও সমাজের গণ্যমান্য ব্যক্তির কথায়ও কান দিচ্ছে না সোহেল মিয়া।এ অবস্থায় নিরূপায় হয়ে পারুল আক্তার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে প্রতিকার চেয়ে একটি অভিযোগ দিয়েছেন।

 

অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনজুর আহ্সান বুল্লা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমানকে ফোন করে এর একটা বিহিত করতে বলে দিয়েছেন। ইউএনও এসময় জানান তিনি এমন অভিযোগ তার কর্মজীবনে আর পাননি।

 

 

ওয়ার্ড মেম্বার শফিক মিয়া জানান,পারুল আক্তারের স্বামী ছুরুক মিয়া মালয়েশিয়া থাকেন। পারুল আক্তারের সাথে যা করা হয়েছে সেটা সম্পুর্ণ অমানবিক।চেয়ারম্যান আমাকে বিষয়টি সমাধান করতে উদ্যোগ নিতে বলেছেন।আমি এখন ঢাকায় আছি।দু-একদিনের মধ্যে বাড়ি ফিরে এসে বিষয়টির সমাধান দেবো।

 

এটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
© All rights reserved © 2024
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: FT It Hosting