1. admin@notunkurisylhet.com : notun :
সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০৮:১২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বাহুবলে করাঙ্গী নদীর বাঁধ ভেঙে এলাকা প্লাবিত।। পানিবন্দি বাসিন্দারা বাহুবলে বিজয়ী হবার পরই কৃতজ্ঞতা জানাতে লোকালয়ে ঘুরছেন চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান বাহুবলে জমি সংক্রান্ত বিরোধ দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৫ তীর বৃদ্ধ গুরুত্বর অবস্থায় দু’জনকে সিলেট প্রেরণ বাহুবলে ফ্রিপ প্রকল্পের কৃষক গ্রুপের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারের মৃত্যু হবিগঞ্জে ছাড়তে হচ্ছে না ৩ উপজেলা চেয়ারম্যান এর চেয়ার বাহুবলে জামানত হারিয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান খলিলসহ ৯ প্রার্থী বাহুবলে জাল ভোট দেওয়ায় একজনের ১ বছরের কারাদণ্ড, আটক ২ দ্বিতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচনে কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের প্রতি পুলিশ সুপারের হুশিয়ারী বানিয়াচংয়ে সংঘর্ষে নিহত ৩! আহত শতাধিক

নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২ নভেম্বর, ২০২১
  • ২২৫ বার পঠিত

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইমদাদুর রহমান মুকুল দলীয় প্রতীক না পেয়ে এবার বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন। সোমবার তিনি গজনাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।

 

জানা যায়, ২০১৬ সালে গজনাইপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়ে ইমদাদুর রহমান মুকুল চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এ সময়ে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় ১০ টাকা কেজি দরের ২২৯ জনের ভুয়া নাম ব্যবহার করে চাল আত্মসাতের অভিযোগ ওঠে তার বিরুদ্ধে। তালিকায় একাধিকবার একই ব্যক্তির নাম যেমন ছিল তেমনি ভুয়া নামেরও ছড়াছড়ি ছিল।

 

শুধু তাই নয়, যে গ্রামে হিন্দু পরিবারই নেই সে গ্রামের তালিকায় ছিল অনেক হিন্দু উপকারভোগীর নাম। এমনকি সরকারি চাল হজম করতে তালিকায় মৃত ব্যক্তিসহ একই পরিবারের স্বামী, স্ত্রী ও সন্তানকে দেখানো হয়েছে ভিন্ন ধর্মের।

 

এমনই অস্বাভাবিক ঘটনা নিয়ে গণমাধ্যমে প্রচারের পর শুরু হয় তদন্ত। এতে বেড়িয়ে আসে এমন অনিয়মের চিত্র। অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় গেল বছরের গত ৭ জুলাই গজনাইপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান পদ থেকে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে ইমদাদুর রহমান মুকুলকে বরখাস্ত করা হয়।

 

এদিকে পার্শ্ববর্তী ইউনিয়নের একটি গ্রামের নিরীহ কয়েকটি পরিবারের বাড়িঘরে আগুন দিয়ে পুড়ানোর প্রধান অভিযুক্ত হিসেবে গ্রেফতার হয়ে প্রায় ৪ মাস কারাভোগ করেন চেয়ারম্যান মুকুল।

 

বিদ্রোহী প্রার্থী নবীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইমদাদুর রহমান মুকুল বলেন, আমি বিদ্রোহী নই, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দাখিল করেছি।

 

তিনি বলেন, আমার সঙ্গে অনেক লোকজন আছেন। আমি বিগত ৫ বছর এলাকায় অনেক উন্নয়ন করেছি। দল যে সিদ্ধান্ত নেবে আমি তা মেনে নেব বলেও তিনি জানিয়েছেন।

 

জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. আলমগীর চৌধুরী বলেন, আমি শুনেছি তিনি বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। তবে যেহেতু তিনি দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে নৌকার বিরুদ্ধে গিয়ে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন, সেহেতু কেন্দ্র তার বিরুদ্ধে যে সিদ্ধান্ত দেবে তা আমরা বাস্তবায়ন করব।

এটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর
© All rights reserved © 2024
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: FT It Hosting